সোমবার, ১৮ ডিসেম্বর ২০১৭

Beta Version

জেরুজালেম নিয়ে আরব লিগের হুঁশিয়ারি

POYGAM.COM
ডিসেম্বর ৫, ২০১৭
news-image

ইসরাইল ও ফিলিস্তিনি উভয় কর্তৃপক্ষই জেরুজালেমকে রাজধানী করতে চায়। ১৯৬৭ সালে পূর্ব জেরুজালেম দখলও করে নেয় ইসরাইল। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এই শহরকে ইসরাইলের রাজধানী ঘোষণা করবেন বলে চলতি সপ্তাহে খবর ছড়িয়ে পড়ার পর এ নিয়ে আবারও উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছে। সোমবার তোলা ছবিতে জেরুজালেম শহর। 

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী ঘোষণা করলে তা সহিংসতাকে উসকে দেবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন আরব দেশগুলোর জোট আরব লিগের প্রধান আহমেদ আবুল গেইত। তিনি মনে করছেন, এতে করে ইসরাইল-ফিলিস্তিনি শান্তিপ্রক্রিয়া ব্যাহত হবে।

জর্ডানও জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী ঘোষণার সিদ্ধান্ত থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে পিছু হটার আহ্বান জানিয়েছে। ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রকে নিবৃত্ত করতে তিনি শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত কূটনৈতিক তৎপরতা চালিয়ে যাবেন। তবে হামাস আবারও ‘ইন্তিফাদার’ হুমকি দিয়েছে।

এদিকে তেল আবিবে মার্কিন দূতাবাস জেরুজালেমে স্থানান্তর করা হবে কি না, তা নিয়ে গতকাল সোমবারই সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা ছিল ট্রাম্পের। ১৯৯৫ সাল থেকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রত্যেক প্রেসিডেন্টকে প্রতি ছয় মাস অন্তর এই সিদ্ধান্ত নিতে হচ্ছে।

ওয়াশিংটন ডিসিতে ব্রুকিংস ইনস্টিটিউটের সেন্টার ফর মিডল ইস্ট পলিসি আয়োজিত সাবান ফোরামে গত রোববার ট্রাম্পের জামাতা ও মধ্যপ্রাচ্যে শান্তিপ্রক্রিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের দূত জ্যারেড কুশনার বলেন, প্রেসিডেন্ট এখনো জেরুজালেম প্রশ্নে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে আসতে পারেননি। তবে আগামীকাল বুধবার ট্রাম্প এ ব্যাপারে ঘোষণা দিতে চলেছেন বলে যে খবর বেরিয়েছে, তা অগ্রাহ্য না করারও পরামর্শ দেন কুশনার।

তবে ট্রাম্পের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা এইচ আর ম্যাকমাস্টার রোববার ফক্স নিউজকে বলেন, জেরুজালেম ইস্যুতে প্রেসিডেন্টের উপদেষ্টারা বেশ কয়েকটি পরামর্শ দিয়েছেন। প্রেসিডেন্ট সেই পরামর্শগুলো বিবেচনা করছেন।

এই পরিস্থিতিতে মিসরের রাজধানী কায়রোয় রোববার সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার সময় আরব লিগের প্রধান আহমেদ আবুল গেইত বলেন, কিছু মানুষ ঝুঁকির বিষয়টি বিবেচনা না করেই এই পদক্ষেপ নিতে উদ্বুদ্ধ করছে। এতে করে মধ্যপ্রাচ্যসহ পুরো বিশ্বের স্থিতিশীলতা বিনষ্ট হবে।

বিবিসি জানায়, জর্ডানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আয়মান সাফাদি সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র যদি জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী ঘোষণা করে, তাহলে তা পরিস্থিতিকে ‘বিপজ্জনক পরিণতির’ দিকে ঠেলে দেবে। এক টুইট বার্তায় তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসনের সঙ্গে এ ব্যাপারে তাঁর কথা হয়েছে।

গার্ডিয়ান জানায়, ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রকে নিবৃত্ত করতে তিনি শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত কূটনৈতিক তৎপরতা চালিয়ে যাবেন। তাঁর মুখপাত্র রোববার বলেন, বিশ্বনেতাদের সঙ্গে পর্যায়ক্রমে টেলিফোনে যোগাযোগ করছেন আব্বাস। মার্কিন দূতাবাস জেরুজালেমে স্থানান্তর বা জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী ঘোষণা করার ফলে কী বিপদ ঘনিয়ে আসতে পারে, তা বিশ্বনেতাদের বোঝানোর চেষ্টা করছেন তিনি।

হামাস হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছে, ওয়াশিংটন যদি একতরফাভাবে জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী ঘোষণা করে কিংবা দূতাবাস স্থানান্তর করে, তাহলে নতুন করে ‘ইন্তিফাদার’ সূচনা ঘটবে।

আরবি শব্দ ইন্তিফাদার অর্থ বিদ্রোহ। পশ্চিম তীর ও গাজায় ইসরাইলি দখলদারীর বিরুদ্ধে ফিলিস্তিনে প্রথম ইন্তিফাদার সূচনা ঘটে ১৯৮৭ সালে। ১৯৯৩ সালে অসলো চুক্তির মাধ্যমে এর সমাপ্তি ঘটে।

শনিবার এক বিবৃতিতে হামাস বলে, ‘জেরুজালেম প্রশ্নে যদি অন্যায় সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়, তাহলে ফিলিস্তিনি জনগণের প্রতি আমাদের আহ্বান থাকবে, ইন্তিফাদাকে পুনরুজ্জীবিত করুন।’

সূত্র: এএফপি