রবিবার, ২১ জানুয়ারি ২০১৮

Beta Version

পবিত্র কুরবানীর ঈদ উদযাপিত

POYGAM.COM
সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৬

eid_bdpratidin

পবিত্র ঈদুল আজহা যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপিত হয়েছে। মহান আল্লাহর নির্দেশে পশু কুরবানির মধ্য দিয়ে বাংলাদেশসহ সারাবিশ্বের মুসলিমগণ এ উৎসব পালন করেন। মুসলিম উম্মাহর দুটি উৎসবের মধ্যে ঈদুল আজহা দ্বিতীয়।

বাংলাদেশে গত ১৩ সেপ্টেম্বর ঈদুল আজহা অনুষ্ঠিত হয়। সকাল থেকেই ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে হালকা থেকে ভারী বৃষ্টি শুরু হয়। ফলে বৃষ্টি মাথায় নিয়েই পবিত্র ঈদুল আজহার নামাজ আদায় ও কুরবানী করেন ধর্মপ্রাণ মানুষেরা।

হযরত ইবরাহীম আলাইহিস সালামের আত্মত্যাগ ও অনুপম আদর্শের প্রতীকী নিদর্শন হিসেবে প্রায় সাড়ে ৪ হাজার বছর আগে থেকে কুরবানির প্রচলন হয়।

আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের নির্দেশে হযরত ইবরাহীম (আ.) তার প্রাণপ্রিয় পুত্র হযরত ইসমাইল (আ.)-কে কুরবানি করতে উদ্যত হয়েছিলেন। মহান প্রভু তার এই কাজে সন্তুষ্ট হন।

নিজ পুত্রকে কুরবানি দেয়ার পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার পর মহান আল্লাহর নির্দেশে ইবরাহীম (আ.) জীবিত থাকাকালে প্রতি বছরই পশু কুরবানির মাধ্যমে সৃষ্টিকর্তার আনুগত্যের আদর্শ প্রতিষ্ঠা করেন।

মহানবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.)ও এ আদর্শ অনুসরণ ও বহাল রাখতে আদিষ্ট হন। তিনিও তাঁর জীবদ্দশায় প্রতিবছরই কুরবানি করেছেন এবং তার উম্মাতদের জন্য এ আদর্শ ও প্রথা অনুসরণের নির্দেশ দিয়ে গেছেন। সেই আদর্শকে সমুন্নত রেখে সারা বিশ্বের ন্যায় বাংলাদেশের মুসলমানরাও পশু কুরবানির মাধ্যমে পালন করছে ঈদ উৎসব।

রাজধানীর জাতীয় ঈদগাহে ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে শরিক হন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন। দেশের সংবাদপত্রগুলো প্রকাশ করেছে বিশেষ সংখ্যা। সরকারি-বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল ও বেতার থেকে বিশেষ অনুষ্ঠানমালা প্রচার করেছে।

ঈদ জামাত শেষে সবাই মন দেন দিনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পশু কুরবানির কাজে। তবে বৃষ্টির কারণে সমস্যায় পড়েন অনেকেই।

কুরবানির পশুর বর্জ্য যথাসময়ে অপসারণের ওপর বেশ জোর দিয়েছে বিভিন্ন নগরীর কর্তৃপক্ষ। ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে বর্জ্য অপসারণের ঘোষণা দেয়।

নির্দিষ্ট স্থানে পশু কুরবানির আহ্বান জানানোর পাশাপাশি বর্জ্যয় অপসারণে দুই সিটি করপোরেশনে ১০ হাজার ৫৪৪ জন পরিচ্ছন্নতাকর্মী কাজ করেছেন বলে জানায় কর্তৃপক্ষ।

বরাবরের মত এবারো ঈদের দিন সকালে বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের সঙ্গে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। প্রধানমন্ত্রী শুভেচ্ছা বিনিময় করেন গণভবনে।

ঈদ উপলক্ষে সরকারি-বেসরকারি গুরুত্বপূর্ণ ভবনগুলোতে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। বিভিন্ন সড়ক ও গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা সাজানো হয় মনোরম সাজে। রাতে ছিল আলোকসজ্জার ব্যবস্থা।

এছাড়া ইসলামী দুনিয়ার দেশে-দেশে স্থানভেদে একদিন আগে-পরে ঈদুল আজহা উদযাপিত হয়।

সৌদি আরবে ঈদ উদযাপিত হয় ১২ সেপ্টেম্বর। আর তার আগের দিন পবিত্র নগরী মক্কার উপকণ্ঠে আরাফার ময়দানে উপস্থিতির মাধ্যমে এবং আল্লাহর ঘর তাওয়াফসহ নানা অনুষঙ্গ উদযাপনের মাধ্যমে পবিত্র হজ্জ পালন করেন সম্মানিত হাজী সাহেবগণ। পরের দিন ঈদ জামাত শেষে পশু কুরবানীও করেন তারা।